অজানা

মেসি বনাম রোনালদো! কে বেশি জনপ্রিয়?

মেসি বনাম রোনালদো

বন্ধুরা কেমন আছেন সবাই, তো বন্ধুরা আজকের এই ভিডিওতে আমরা জানবো বর্তমানে পৃথিবীর বিখ্যাত দুই ফুটবল খেলোয়ার লিওনেল মেসি এবং ক্রিস্টিয়ানো রোনালদো সম্পর্কে। যারা ফুটবল প্রেমী মানুষ তাদের মধ্যে প্রায় শহীদ দ্বন্দ্ব লাগে।

যে খেলার দিক দিয়ে এবং লাইভ স্টাইল সহ সম্পদের দিক দিয়ে লিওনেল মেসি রোনালদোর থেকে এগিয়ে আবার রোনালদো নাকি মেসির থেকে এগিয়ে।

তো আজকের এই পোস্টটে, আমরা স্পষ্ট করে জানব যে সম্পদের দিক দিয়ে কে বেশি এগিয়ে রয়েছে। এবং সত্যিকার জনপ্রিয়তা কার বেশি। তো কথা না বাড়িয়ে মূল পোস্টে চলে যাচ্ছি।

মেসি বানাম রোনালদো! কে সেরা?

তো প্রথমে সম্পদের দিক দিয়ে তুলনামূলক আলোচনা করি। যেমন বর্তমান সময়ে লিওনেল মেসির মোট সম্পত্তির পরিমাণ 600 মিলিয়ন ইউএস ডলার।

মানে তার বাড়ি এবং গাড়ি বাদ দিয়েও তার কাছে শুধু ক্যাপ 400 মিলিয়ন ইউএস ডলার বা 3 হাজার 400 কোটি টাকা রয়েছে। এই টাকাগুলো এতটাই বেশি যে লিওনেল মেসি যদি প্রতিমাসে দুই কোটি টাকা.

করে খরচ করে তাহলে এই সম্পূর্ণ টাকা শেষ হতে প্রায় দেড়শ বছর লেগে যাবে। এবং 2021 অনুযায়ী লিওনেল মেসির প্রতি বছর 71 মিলিয়ন ইউরো আয় করেন।

রোনালদো সম্পর্কে জানুন

এবার দেখি রোনালদোর মোট সম্পত্তির পরিমাণ কত। বর্তমান সময়ে ক্রিস্টিয়ানো রোনালদোর মোট সম্পত্তির পরিমাণ 500 মিলিয়ন ইউএস ডলার বা চার হাজার 250 কোটি টাকা। তো যাই হোক 2021 অনুযায়ী প্রতি বছর মোট 38 মিলিয়ন ইউরো পারিশ্রমিক পান।

যাইহোক সম্পদের দিক দিয়ে কিন্তু মেসির থেকে রোনালদো অনেকটাই এগিয়ে রয়েছে। কিন্তু বাৎসরিক আয়ের দিক দিয়ে মেসি এবং রোনালদোর থেকে এগিয়ে রয়েছে। পরিবার তাদের গাড়ির কালেকশন এর দিকে আসা যাক।

মেসির গাড়ি সম্পর্কে

প্রথমেই মেসির গাড়ির কালেকশন গুলো জেনে আসি। মেসির গ্যারেজে মোটামুটি চোখ দুটি গাড়ি রয়েছে। আর লিওনেল মেসি চৌদ্দটি গাড়ির মূল্য প্রায় 260 কোটি টাকা।

মেসির গ্যারেজের গাড়িগুলো হচ্ছে ফেরারি ত্রি ত্রি ফাইভ এস আর এ। গাড়িটি মেসির সব থেকে প্রিয় গাড়ি এবং এই গাড়িটি অনেক পুরনো হাজার 957 সালে তৈরি করা।

এবং এই গাড়িটির মূল্য মোটামুটি ৩০ মিলিয়ন ইউএস ডলার, যা বাংলাদেশি টাকায় 260 কোটি টাকা। এ ছাড়া রয়েছে দুই কোটি 50 লাখ রুপির মেজারিং টুলস রয়েছে।

1 কোটি 25 লাখ রুপি অ্যান্ড ট্যুরিজম এর একটি অডি আর এফবিতে অ্যাক্টিভ চার্জার srt8। একটি অডি r8 ইসপাইডার একটি অডি q7 একটি ফারারি f430 স্পাইডার। একটি লেক্সাস আরেকটি 70 লাখ রুপির ক্যাডিল্লাক এস্ক্যালাদে।

একটি মিনি কুপের 100 বার বক্তৃতায়। এসব ছাড়াও লিওনেল মেসির একটি প্রাইভেট জেট দিন রয়েছে যার নাম গার্লফ্রেন্ড ভি। আর এই প্রাইভেট প্লেন টির মূল্য মোটামুটি 500 কোটি টাকা।

তো প্রাইভেট জেট প্লেনের রয়েছে একটি সুন্দর কিচেন রয়েছে, দুটি সুপার বাথ্রুম। এ ছাড়া রয়েছে 16dc যেগুলোকে যেকোনো সময় বিছানাতে কনভার্ট করা যায়। আর এই পার্সোনাল প্লেনটিতে বেশি বিশেষ করে তার জন্য ডিজাইন করেছে।

আর এইযে প্লেনের কিসের পাকাতে মেসির নাম লেখা রয়েছে। এছাড়া এই প্রাইভেট জেট প্লেনের সিরিজগুলোতে মেসির নাম,  তার বইয়ের নাম এবং তার ছেলে গুলোর নাম লেখা রয়েছে।

রোনালদো গাড়ি সম্পর্কে

তো এবার রোনালদোর গ্যারেজ থেকে ঘুরে আসি। যাই হোক রোনালদোর কাছে রয়েছে 8 কোটি টাকা দামের একটি রোলস রয়েলস।

এবং এই গাড়িটি যখন প্রথম বের হয় তখন সর্বপ্রথম এ গাড়িটি রোনালদো তার জন্যই কিনে নেয়। রয়েছে 8 কোটি টাকা দামের ম্যাকলারেন সিনা। এছাড়া রয়েছে একটি বুগাটি চিরন এবং এই গাড়িটি মূল্য ভারতে মোটামুটি 20 কোটি রুপির মত।

এই গাড়িতে রয়েছে চৌদ্দশ হর্সপাওয়ার ইঞ্জিন এবং গাড়িটি সর্বোচ্চ গতি হচ্ছে 300 মাইল প্রতি ঘন্টা 483 কিলোমিটার। এছাড়াও রয়েছে একটি মারসিটিস cs3 130 কোটি টাকা মূল্যের বুগাটি ভেরন। রয়েছে 10 কোটি টাকা মূল্যের বাইক।

রয়েছে 6 কোটি টাকা মূল্যের ল্যাম্বরগিনি অ্যাভেঞ্জার। রয়েছে একটি ম্যাকলারেন mp4। আরো রয়েছে ফেরারি।

এগুলো ছাড়াও রয়েছে 191 পর্ব 133 কোটি টাকার মেয়ে। রোনালদোর গ্যারেজে মোটামুটি 21 টি গাড়ি রয়েছে। তবে যেগুলোর বলার মত শুধু সেগুলোর নাম বললাম। এ ছাড়া গাড়ি বাদ দিয়ে রোনালদোর দুইটি প্রাইভেট জেট প্লেন রয়েছে। প্রথমটি নাম হচ্ছে 200 এবং এই প্ল্যান্টের মূল্য মোটামুটি দেড়শ কোটি টাকা।

এ ছাড়া রয়েছে 480 কোটি টাকা মূল্যের গালস ক্রিম 650r। বিশেষ করে রোনালদোকে প্রাইভেট জেট প্লেন কোন দেশে ভ্রমণ করতে গেলে বা খেলতে গেলে নিয়ে যান।

তো যাই হোক মেসির সবগুলো গাড়ি এবং প্লেন গুলোর মূল্য হচ্ছে মোটামুটি 720 কোটি টাকার মতো। অন্যদিকে ক্রিস্টিয়ানো রোনালদোর সবগুলো গাড়ি এবং প্লেন গুলোর মূল্য মোটামুটি 930 কোটি টাকার মতো। বিলাসিতা দিক দিয়ে কিন্তু ক্রিস্টিয়ানো রোনালদো মেসি থেকে প্রায় অনেকটাই এগিয়ে রয়েছে।

জানুন মেসির বাড়ি সম্পর্কে

মেসির কাছে দুইটি বাড়ি রয়েছে। প্রথম বাড়িটির রয়েছে ক্যাস্টেল ডিফেন্স নামের। এই জায়গাটিতে মেসির বাড়ির ভেতরে সুবিধা রয়েছে।

একটি জিমনেসিয়ামের, এছাড়া তার বউয়ের সাজুগুজু জন্য রয়েছে। এছাড়া এই বাড়ির ভেতরে রয়েছে বলপ্লিজ। যেখানে মেসি বেশিরভাগ সময়ই অনুশীলন করে। তো এই সুন্দর করে বাড়িটির মূল্য পদ্ধতির 50 কোটি টাকার মতো।

মেসির দ্বিতীয় বাড়িটি দেখতে অনেকটা অ্যাপেল কোম্পানির অফিস এর মতো। মানে নিশি এই বাড়িটি একেবারে ইউনিক ভাবে তৈরি করা। বার্সেলোনা শহর থেকে 30 কিলোমিটার দূরে ক্যাটালিন পাহাড়ের মধ্যে রয়েছ মিশে এই বাড়িটিতে।

ওই বাড়িটি দেখতে অনেকটা একটি ফুটবল মাঠের মতো। এবং বর্তমানে মেসি এই বাড়িটিতে বসবাস করছে। তো যাই হোক ইন সম্পূর্ণ বাড়িটির মূল্য প্রায় 100 কোটি টাকার মতো।

জানুন রোনালদোর বাড়ির সম্পর্কে

আর যদি কথা হয় রোনালদোর বাড়ির বিষয়ে তাহলে রোনালদো অনেক সুখী মানুষ। রোনালদোর অনেকবারই রয়েছে শুধু বাড়ি নয়। বিভিন্ন দেশের রোনালদো 220 কোটি টাকা মূল্যের প্রপার্টি কিনে রেখেছে।

তবে বর্তমানে রোনালদো স্পেনের মাদ্রিদ শহরে একটি বিলাসবহুল বাড়িতে বসবাস করছেন। তবে রোনালদোর বাড়ি ঘর প্রপার্টি কথা বলে শেষ করা যাবেনা। মেসির যেমন মাত্র দুইটি রয়েছে।

অন্যদিকে রোনালদোর অনেক প্রপার্টি এবং অনেক ধরনের হোটেল রেস্টুরেন্ট এবং ব্যবসা। মোট কথায় বিলাসিতার দিক দিয়ে মেসি কোনদিন রোনাল্ডোর সাথে টিকতে পারবে না। এবার দেখি পার্সোনাল লাইফে কে কেমন।

যেমন লিওনেল মেসি মানুষকে সাহায্য করার জন্য লিও মেসি ফাউন্ডেশন তৈরি করেছেন। লিওনেল মেসির প্রতি বছর কোটি কোটি টাকা বিভিন্ন চরিত্র দান করেন।

আর অন্যদিকে ক্রিস্টিয়ানো রোনালদো তার বাৎসরিক আয়ের একটি বড় অংশ। বিভিন্ন চ্যারিটিতে দান করেন, এছাড়া রোনালদো তার নিজের খরচে একটি অনাথ আশ্রম চালান। যেখানে মোটামুটি 600 জন অনাথ শিশু রয়েছে।

তো যাই হোক 2012 সালের দিকে রোনালদো তার একটি গোল্ডেন বুট নিলামে তুলে ছিলেন। এবং মজার ব্যাপার হচ্ছে এই গোল্ডেন বুট থিস 13 কোটি টাকায় বিক্রি হয়েছিল। এবং এই সম্পূর্ণ টাকা রোনালদো একটি চ্যারিটি দান করেন। তো যাই হোক বুঝা গেল যে এই দুই জন প্লেয়ারের মন-মানসিকতা বেশ বড়।

সোশ্যাল মিডিয়াতে অর্থাৎ ইনস্টাগ্রামে মেসির মোট ফলোয়ারের সংখ্যা হচ্ছে 196 মিলিয়ন। অন্যদিকে ক্রিস্টিয়ানো রোনালদো ইনস্টাগ্রামে মোট বড় সংখ্যা হলো 276 মিলিয়ন। সোশ্যাল মিডিয়াতে ক্রিস্টিয়ানো রোনালদো একটু বেশি এগিয়ে রয়েছে। তো যাই হোক মেসি এবং রোনালদোর পার্সোনাল লাইফ সম্পর্কে ইনফরমেশন দিয়ে পোস্টটি বড় করতে চাইলাম না।

পরিশেষে

মোটকথা বিলাসবহুল জীবনযাপন এবং স্টাইলের দিক দিয়েও রোনালদো অনেকটাই এগিয়ে রয়েছে। কিন্তু যদি জনপ্রিয়তার দিক দিয়ে বলেন তাহলে আমার মতে, বেশি হচ্ছে রোনালদোর থেকে বেশি জনপ্রিয় তাছাড়া চায়নাতে লিওনেল মেসির।

একটি থিম পার্ক তৈরি করা হচ্ছে যার নাম দাম বেশি এক্সপিরিয়েন্স বার। এই পার্কটি তৈরি হচ্ছে 42 হাজার স্কয়ার ফিট এলাকাজুড়ে। আর এই পার্কটি তৈরি হয়ে যাওয়ার পর এটিই হবে পৃথিবীর সবথেকে বড় ফুটবল থিম পার্ক।

আরে সম্পূর্ণ থিম পার্ক তৈরি করতে মোটামুটি 200 মিলিয়ন ইউএস ডলার বা 1700 কোটি টাকা খরচ হয়েছে। তো যাই হোক কমেন্ট বক্সে কিন্তু অবশ্যই জানাবেন যে আপনি কার ফ্যান তো সবাই ভাল থাক.সুস্থ থাকবেন আল্লাহ হাফেজ।

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button