সমাধান

জেনে নিন সফলতার গোপন সুত্র

সফলতার গোপন সুত্র জানুন

আজকের এই পোষ্টি বেশ গুরুত্বপূর্ণ হতে চলেছে। কারণ আজকের এই পোষ্টটিতে আপনি এমন পাঁচটি কথা জানতে চলেছেন, যা আপনার কোনদিনই কাউকে বলা উচিত নয়।

যদি আপনি লাইফে একজন successful ব্যক্তি তৈরি হতে চা তাহলে কোনদিনই এই পাঁচটি কথা কাউকে বলবেন না। তাই পোস্টটি শেষ অবধি অবশ্যই দেখবেন। এবং পোষ্টটিতে বলা কথাগুলিকে বোঝার চেষ্টা করবেন.

Number One :  নিজের জীবনের লক্ষ্য বা লাইফ এ আপনি কি করতে চান? কি হতে চান? এই কথাটি আপনার কাউকে বলা উচিত নয়। এবার আপনি হয়তো ভাবছেন যে এ আবার কেমন কথা?

আমি যদি লোককে এ ব্যাপারে বলি। তাহলে তো তারা আমাকে আরো মোটিভেট করবে। আমাকে সেই ফিল্ডের ব্যাপারে বোঝাবে নতুন আইডিয়াস দেবে। তাহলে কেন আমি আমার গোলস কে লোকেদের বলবো না।

কিন্তু বন্ধুরা এই কথাটি আপনার অবশ্যই জেনে রাখা উচিত যে লোকেরা খুবই সেলফি বয়। লোকেরা কোনদিনই চাইবে না যে আপনি ভালো কিছু করুন। তারা কোনো দিনই চাইবে না যে আপনি লাইফ এ successful হন।

বরং তারা আপনাকে আরো demotivate করবে। তারা আপনাকে আরো confuse করবে। তারা আপনার focus কে সরানোর চেষ্টা করবে। তারা আপনাকে মোটিভেট করার পরিবর্তে আপনার গোলস কে নিয়ে ঠাট্টা করবে।

তারা আপনাকে বহু গোলস কে দেখিয়ে বিরক্ত করবে। আপনার বাছাই করা গোলের উপর থেকে focus একেবারেই সরিয়ে দেবে। এই কারণের জন্য নিজের গোলস এর ব্যাপারে কোন কথা সবাইকে না বলাটাই সঠিক।

তবে এমন নয় যে আপনি কাউকেই তা বলবেন না। কিছু কিছু লোক রয়েছে যারা সত্যিই আপনার কেয়ার করে। তারা আপনাকে মোটিভেট করে তাদের অবশ্যই বলুন। কারণ তারা আপনার সেই গোল কে পূরণ করার জন্য আপনাকে সাহায্যও করবে।

কিন্তু নিজের গোলের ব্যাপারে সবাইকে জানানোটা বোকামির কাজ। যেমন আপনার Parents আপনার টিম এদের সঙ্গে অবশ্যই আপনার গোল বা লক্ষের ব্যাপারে শেয়ার করুন। কিন্তু সবার সঙ্গে নয়।

Number Two : নিজের ব্যক্তিগত জীবন। নিজের personal লাইফ এর বিভিন্ন কথা আপনাকে সবাইকে জানা উচিত নয়। আজ আমার বাড়িতে এই হয়েছে,

আজ আমার বাড়িতে ওই হয়েছে, আজ আমরা এটি নেব। এই সকল বিষয়গুলিকে কোনদিনই আপনার কাউকে জানানো উচিত নয়। Discuss করার জন্য বহু tropic রয়েছে সেগুলির আলোচনা করুন।

নিজের personal লাইফ কে লোকেদের সাথে discuss করাটা বোকামির কাজ। আপনার হয়তো মনে হয় যে লোকেরা আপনার প্রবলেম গুলিকে শুনে আপনাকে suggest করবে। সেগুলিকে solve করার চেষ্টা করবে না এমনটা একেবারেই নয়।

বরং লোকেরা আপনার সেই discussion গুলিকে শুনে মজা নেবে। তারা আপনার সামনে সিমপ্যাথিত দেবে ঠিকই যে ভাই এমন করিস না। তোর সাথে এত বড় ঘটনা ঘটে গেছে আমার খুবই দুঃখ হচ্ছে ট্রায়াডসেটরা।

কিন্তু রিয়েলিটিতে তারা আপনার এই কথাগুলিকে শুনে আনন্দ পাচ্ছে। আর শুধু তাই নয়, আপনার এই কথাগুলিকে নিয়ে তারা অপবাদও ছড়াবে।

এই কারণের জন্য নিজের personal লাইফ এর ব্যাপারে কোন কথা আপনার কাউকে জানানো উচিত নয়।

Number Three : আপনার ভালো কাজ, নিজের ভালো গুণ এবং নিজে কি কি ভালো কাজ করেছেন। তার ব্যাপারে কাউকে জানানোটা উচিত নয়। আপনি লাইফ এ যে সকল ভালো কাজগুলিকে করেছেন।

তার বড়াই কোনদিনই কারো সামনে করবেন না। আর যদি সত্যিই আপনি কোন ভালো কাজ করে থাকেন। তাহলে তার চর্চা এবং সুনাম লোকেরা এমনিতেই করবে। নিজের সুনাম নিজেই করার মতো বোকামির কাজ আর নেই। আমি এই করেছি, আমি ওই করেছি.,আমি তাকে হেল্প করেছি, তাকে আমি টাকা ধার দিয়েছি, আমি যদি তাকে হেল্প না করতাম তাহলে তার এই হয়ে যেত বা ওই হয়ে যেত।

এই ধরনের কথা কোনোদিনই বলা উচিত নয়। শোনানোরই যখন ছিল তাহলে হেল্প করলেন কেন। কেউ তো আপনাকে জোর করেনি যে হেল্প করো। তাই না? আর যদিও বা কেউ হেল্প চেয়ে থাকে তাহলে তাকে না করে দিতেন।

যে ভাই আমি হেল্প করতে পারবো না। দেখুন এটা অবশ্যই ভালো কথা যে আপনি কোনো ব্যাক্তির খারাপ পরিস্থিতিতে তাকে হেল্প করেছেন। হয়তো আপনি তাকে হেল্প না করলে তার অবস্থা খুবই খারাপ হয়ে যেত।

এটা অবশ্যই খুবই ভালো কাজ। খারাপ পরিস্থিতিতে অপরকে সাহায্য করার মতো ভালো কাজ আর হয় না। কিন্তু এটি কাউকে বলতে নেই। আমি একে হেল্প করেছি ওকে হেল্প করেছি এই ধরনের কথা কোনোদিনই বলতে নেই।

এই ধরনের কথা বলেই আপনি নিজেকে self সেন্টার করে নিচ্ছেন এবং নিজেকে selfie বানিয়ে নিচ্ছেন। আপনি কারো উপকার করেছেন এটি সত্যিই খুবই ভালো কাজ। যার সাহায্যের প্রয়োজন তাকে সাহায্য করতে থাকুন। কিন্তু এর বড়াই করা উচিত নয়।

Number Four : নিজের গোপনীয়তা। এটিকে dark secret ও বলা যায়। দেখুন আমাদের প্রত্যেকের লাইফ এই এমন কিছু secrets রয়েছে। যা আমরা কাউকেই বলতে চাই না।

আর সত্যি বলতে কি এই ডার্ক সিক্রেট গুলিকে কাউকে বলাও উচিত নয়। কিন্তু মাঝেমধ্যে flow এ আমরা এই সিক্রেট গুলিকে নিজেদের বন্ধুদের বলে ফেলি। কিন্তু পরে আমাদের মনে হয় যে না তাকেই সিক্রেটি বলা আমার উচিত হয়নি।

যদি সে কাউকে বলে দেয়, মাঝে মধ্যে তো এমনও হয় যে আমরা তাদের বলি যে ভাই যে dark secrety আমি তোকে বলেছিলাম না সেটা তুই কাউকে বলিস না। এবার যেহেতু আপনি তাকে বলেছেন যে সে যেন কাউকে না বলে।

তো আপনার সেই বন্ধু সেই সিক্রেটটিকে কাউকে বলবে না এমনটা হতেই পারে না। সে এই কথাটি কাউকে না কাউকে কোনো না কোনো দিন অবশ্যই বলবে। এই কারণের জন্য নিজের সিক্রেট গুলিকে কাউকে বলা উচিত নয়।

আপনার কি মনে হয় যে বন্ধুকে আপনি আপনার সিক্রেটস কে জানিয়েছেন সে কি আপনার সাথে সব সময় থাকবে? নিশ্চয় না কেউই লাইফে চিরজীবন থাকে না। কোন না কোন সময় তার সাথে আপনার কথা কাটাকাটি তর্ক বা শত্রুতা হবেই।

তো এক্ষেত্রে এমনকি guarantee রয়েছে যে। সে আপনাকে আপনার সেই ডাক secretary র উল্লেখ নিয়ে blackmail করবে না। আর যদিও বা সে কাউকে বলে তবুও আপনার মনে তো সবসময় একটি ভয় লেগেই থাকবে।

যে যদি সে কাউকে আমার সেই গোপন কথাগুলি বলে দেয়। তো এক্ষেত্রে চারিদিক দিয়ে লস কিন্তু আপনারই তাই না?

Number Five : নিজের অবস্থা। যদিও এই কথাটি আমার বলা উচিত নয়। কিন্তু সত্যি বলতে কি জানেন আজকাল মানুষের ভ্যালু অর্থের তুলনায় অনেক কমে গেছে। টাকা পয়সা জমিজমা, বিজনেস এই সকল বিষয়গুলিকে নিয়ে কমবেশি প্রায় প্রতিটি পরিবারেই বিবাদ লেগেই রয়েছে।

তো এক্ষেত্রে আপনার financial condition এর ব্যাপারে কাউকে না বলাটাই ঠিক। আপনার কাছে যা আছে তা কাউকে বলার অর্থ হলো নিজের বিপদ নিজে ডেকে আনা।

সর্বশেষ

তো বন্ধু এই পাঁচটি পয়েন্টের মধ্যে থেকে আপনি কোন কোন পয়েন্টটিকে এতদিন ধরে লোকেদের কাছে বলে এসেছেন। তা নিচে কমেন্ট বক্সে অবশ্যই জানাবেন। পোষ্টটি ভালো লেগে থাকলে শেয়ার অবশ্যই করবেন, যাতে এই ইন্টারেস্টিং নলেজ অন্যদের কাছেও পৌঁছায়। ধন্যবাদ

2 Comments

  1. That’s another amazing post on yourssite. Thanks for that
    dude. Md. Monir Hossain

    All of the tips which you mentioned are very helpful while blogging. We must follow all of them while blogging.
    T agree with you, if you are not able to write regularly that’s not a major problem but if you are not providing value
    to the reader whenever you write then you are just wasting your efforts and time. Because people always want to learn something
    by reading your posts. Nobody will subscribe to your blog or share it on social media if you are not providing any advantage to them.
    I think networking is also an important factor to become a Md. Monir Hossain successful
    blogger. We should consistently keep in touch with the other bloggers by doing blog comments, on social media or by meeting them personally.
    in short. there is a lot to learn in this blogging world. Keep learning and keep sharing is the only rule of successful blogging.
    Anyways, that’s an amazing post. Keep up the great work. All the best.

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button